Samsung Galaxy A9 (2018)

বন্ধুরা কেমন আছেন সবাই? আশা করি সবাই বেশ ভালো আছেন । জি হ্যাঁ, আপনাদের ভালোবাসাতে আমিও ভালোই আছি। বন্ধুরা অনেকদিন নতুন কোনো ডিভাইজের খোঁজ খবর তেমন পাওয়াই যাচ্ছে না। নতুন কোনো ফিচার্স যারা খুঁজছেন হন্নে হয়ে তাদের জন্য একটা দারুন সুখবর আছে।আপনাদের জানাতে এসেছি নতুন একটি চমক লাগানো ডিভাইজ Samsung Galaxy A9 (2018) সম্পর্কে।

স্মার্টফোন লাভারদের জন্য দারুন একটি ডিভাইজ নিয়ে এলো বিশ্বের অন্যতম স্মার্টফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান Samsung । সবচেয়ে ইউনিক যে ফিচারটি থাকছে এই স্মার্টফোনটিতে সেটি হচ্ছে এর ক্যামেরা সেকশন। বিশ্বের প্রথমবার রেয়ারে চার চারটি ক্যামেরা ব্যবহার করা হয়েছে এই স্মার্টফোনটিতে।

আরো কি কি নজরকাড়া ফিচার্স থাকছে এই স্মার্টফোনটিতে চলুন দেখে নেই একপলকে।

Samsung Galaxy A9 (2018) এর-ডিসপ্লে

Samsung Galaxy A9 (2018) এর একটি বিশেষ যে ফিচারটি থাকছে সেটি হচ্ছে এর লার্জ ডিসপ্লে। ৬.৩০ ইনচেস একটি বড় ডিসপ্লে দিয়েছে এই ফোনটিকে একটি প্রিমিয়াম লুক। আর Samsung এর ডিসপ্লে সম্পর্কে বিশেষ কিছু বলার অবকাশ নেই। কারণ Samsung এর প্রতিটি স্মার্টফোনেই বেস্ট এমোলেড ডিসপ্লে ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

কিন্তু কিছুটা হলেও আক্ষেপ থেকেই যাবে কেন ৬.৫০ ইনচেসের ডিসপ্লে দেয়া হলো না স্মার্টফোনটিতে।

এই স্মার্টফোনটিতেও ১০৮০*২২২০ পিক্সেলস এর একটি নান্দনিক ডিসপ্লে ব্যবহার করা হয়েছে।

RAM এবং Internal Storage

স্মার্টফোনের একটি বিশেষ অঙ্গ হলো এর RAM । কারণ RAM এর উপরে স্মার্টফোনের কার্যক্ষমতা   নির্ভর করে। আর Internal Storage এর উপর নির্ভর করে ডিভাইজটির তথ্য ধারণ ক্ষমতা।সেইদিল থেকে দেখতে গেলে এই স্মার্টফোনটি অনেকটাই অ্যাডভান্সড। কারণ ৬জিবির RAM দেয়া আছে এই স্মার্টফোনটিতে।

এবং ইন্টারনাল স্টোরেজ রয়েছে ১২৮জিবি। যা নিঃস্বন্দেহে খুবই ভালো।

প্রসেসর

প্রযুক্তির সেরাটি দেয়ার চেষ্টা করা হয়েছে এই স্মার্টফোনটিতে। প্রসেসরই বা বাদ পড়বে কেন।প্রতিযোগিতায় টিকে থাকার জন্য আপডেটেড প্রযুক্তির সবকিছু মিলিয়েই এই স্মার্টফোনটি। প্রসেসর হিসেবে অক্টাকোর প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। আর প্রসেসর মেক হিসেবে কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৬৬০ ব্যবহার করা হয়েছে।

এক্সপান্ডবল স্টোরেজ

যদিও স্মার্টফোনটির ইন্টারনাল স্টোরেজ ১২৮জিবি তবুও অনেকের কাছে এইটা যথেষ্ট নাও হতে পারে। চিন্তার কোনো কারণ নেই। কারণ এই স্মার্টফোনটিতে এই স্মার্টফোনটিতে থাকছে এক্সপান্ডবল স্টোরেজের সুবিধা। হ্যাঁ বন্ধুরা , এইফোনটিতে এক্সপান্ডবল স্টোরেজ টাইপটি থাকছে মাইক্রো এসডি স্টোরেজ টাইপ।

৫১২জিবি পর্যন্ত এক্সপান্ডবল মেমরি কার্ড ব্যবহার করা যাবে স্মার্টফোনটিতে।

সফটওয়্যার ও ব্যাটারী

সফটওয়্যার এর দিক থেকেও আপডেটেড এই স্মার্টফোনটিতে থাকছে Android Oreo 8.0 অপারেটিং সিস্টেম। অপারেটিং সিস্টেম বলতে ডিভাইজটি অপারেট করার সফটওয়্যারকেই বুঝায়। এক্ষেত্রে অপারেটিং সিস্টেম যত আপডেটেড আর নিউ ভার্সনের হবে ডিভাইজটি ততই কাজের দিক দিয়ে আপগ্রেটেড হবে।

স্মার্টফোনটিতে Skin হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে Samsung Experience UX। স্মার্টফোনটিতে  ব্যাটারী হিসেবে  3750mah এর একটি ননরেমোভাল ব্যাটারী সেট করা হয়েছে ।

কানেক্টিভিটি

স্মার্টফোনটিতে অন্যান্য স্মার্টফোন ডিভাইজের মতো সব কিছুই থাকছে। wi-fi ,bluetooth ,gps , headphone ,fm ইত্যাদি সবই থাকছে। আর সিম কার্ডের কথা বলতে গেলে স্মার্টফোনটিতে দুই সিম একসাথে ব্যবহার করা যাবে। এবং দুইটি সিম এই 4G কানেক্টিভিটি পাওয়া যাবে। এবং অবশ্যই সিম দুইটি ন্যানো সিম হতে হবে।

সেন্সর

সেন্সর হিসেবে একটি স্মার্টফোনে যতগুলো আধুনিক সেন্সর থাকা দরকার সেই সবই থাকছে এই স্মার্টফোনটিতে। সুপার ফাস্ট ফ্রিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর এর সাথে স্মার্টফোনটিতে থাকছে সুপার ফাস্ট ফেস আনলক সিস্টেমটিও। এছাড়া কম্পাস সেন্সর এবং এর সাথে প্রক্সিমিটি সেন্সর ও থাকছে। Ambinet Light সেন্সর তো থাকছেই।

ক্যামেরা সেকশন

আপনি যদি একজন ক্যামেরা লাভার হন তবে Samsung Galaxy A9 (2018) এই স্মার্টফোনটি থাকতেই হবে আপনার পছন্দের তালিকাতে। কারণ বিশ্বে প্রথমবারের মতো রেয়ারে চার চারটি ক্যামেরা ব্যবহার করা হয়েছে এই স্মার্টফোনটিতে। এই স্মার্টফোনটিতে রেয়ারে ২৪এমপি+১০এমপি+৮এমপি+৫এমপি এর চারটি ক্যামেরা ব্যবহার করা হয়েছে। এই কোয়াড ক্যামেরা প্রযুক্তি অবশ্যই একটি নান্দনিক ফিচার যোগ করেছে এই স্মার্টফোনটিতে।

এছাড়াও ফোনটির সেলফি পারফরম্যান্সের কথা মাথায় রেখে ফ্রন্টে যোগ করা হয়েছে ২৪ এমপি এর একটি পাওয়ারফুল সেলফি ক্যামেরা।

বিশ্ব আধুনিক হচ্ছে, আধুনিক হচ্ছে এর প্রযুক্তিও। স্মার্টফোনের দিগন্তে যোগ হচ্ছে নিত্যনতুন ফিচার্স এর ডিভাইজ। Samsung Galaxy A9 (2018) এই ডিভাইজটি তার ফিচার্স এর মাধ্যমে সবার মন জয় করতে পারবে আশা করে যায়। আর এর রেয়ার এ চারটি ক্যামেরা স্মার্টফোনটিকে অবশ্যই  নতুন একটি বিশেষত্ব দিয়েছে।

যারা ফোটোগ্রাফি লাভার তাদের নিঃস্বন্দেহে পছন্দ হবে এই ডিভাইজটি। দুইটি দিক আর একটু আপডেটেড করা যেত বলে আমি মনে করি। একটি হলো এর ডিসপ্লে সেকশন। ডিসপ্লেটি ৬.৫০ ইনচেস দেয়া যেত। আর একটি এর ইন্টারনাল স্টোরেজটা আর একটু বাড়িয়ে ২৫৬জিবি করলে আরো ভালো হতো বলে আমি মনে করি।

কিন্তু এই বাজেট এ বেশ ভালোই ফিচার্স দিতে সক্ষম হয়েছে Samsung যার জন্য তাদের ধন্যবাদ । ফোনটি বাংলাদেশের মার্কেটে পাওয়া যাবে BDT49,990 টাকাতে। যা ব্র্যান্ড এবং ফিচার্সের দিক দিয়ে দেখতে গেলে মোটামুটি এফোর্টেবল।সবাই ভালো থাকুন ,সুস্থ থাকুন। আল্লাহ হাফেজ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here