Huawei Y9

আপনি কি চাচ্ছেন মিডরেঞ্জের মধ্যে দারুন একটা ফোন? তবে Huawei ব্র্যান্ডের Y9 ফোনটি নিতে পারেন। মিডরেঞ্জের বাজারে রাজত্ব করা এই ব্র্যান্ডের হ্যান্ডসেটগুলো বেশ ভালোই বলা চলে। এতে পাচ্ছেনএকটি নয়, দুইটি নয়, এমনকি তিনটিও নয়, চার চারটি ক্যামেরা। স্লিম এবং কম্প্যাক্ট ডিজাইনের এই ফোনটি। এটি পাবেন তিনটি ডিফারেন্ট কালারে। ৪জি এনাবল এই হ্যান্ডসেটটিতে থাকছে অনেক অনেক ফিচার্স। আমি লম্বা একটা দম নিয়ে আমার লেখা শুরু করছি। নইলে এর ফিচার্স লিখতে লিখতে আমায় অবশ্যই হাপিয়ে পড়তে হবে।

সে যাই হোক। মাত্র ১৯৫৯০ বাংলাদেশী টাকাতে এই ফোনটি পেয়ে যাবেন। যার প্রিমিয়াম লুক আপনাকে আকর্ষণ করবেই । তাহলে আর কথা না বাড়িয়ে জেনে নিই। এই ফোনটি কেন কিনবেন?

বডি এন্ড বিল্ড কোয়ালিটি

মিডরেঞ্জের ফোনগুলোর মধ্যে হুয়াওয়েই দিচ্ছে এই ফোনটিতে ব্যাক মেটাল বডি পার্ট।ব্যাক পার্টে ব্যবহার করা হয়েছে  অ্যালুমিনিয়াম।যা ফোনটিকে শুধু প্রিমিয়াম লুকই দেয় নি। ডিউরেবল করেছে ফোনটিকে। বর্তমানে ফুল ভিউ ডিসপ্লের কদর বাড়ছে। বলতে গেলে ফুল ভিউ ডিস্প্লেয়ের ট্রেন্ড চলছে। আপনি কি চাচ্ছেন কম দামে ফুল ভিউ ডিপ্লের স্বাদ পেতে? তবে নিতে পারেন এই ফোনটি। এসব দিক দিয়ে এটি যেকোনো হাই রেঞ্জের ফোনকে টেক্কা দিতে সক্ষম।

গ্রাফিক্স এন্ড ক্যামেরা

গ্রাফিক্সের দিক দিয়ে বেশ ভালো এই ফোনটি। এই ফোনটিতে থাকছে Mail -T830 MP2 রেঞ্জের GPU সিস্টেম। যা থেকে আপনি পাবেন গ্রাফিক্সের আলাদা মজা। আপনি যদি একজন ক্যামেরা লাভার হয়ে থাকেন তবে আর চিন্তা নেই। বিগ রেঞ্জের ফোন কেনার জন্য আর বাড়তি টাকা গুনতে হবে না আপনাকে। পাচ্ছেন ফ্রন্টে ২ দুইটি আর রেয়ারে ২ টি সহ মোট ৪টি ক্যামেরা। ফ্রন্টে থাকছে ১৩+২ মেগাপিক্সসেলের ক্যামেরা। আর রেয়ারে থাকছে ১৬+২ মেগাপিক্সসেলের ক্যামেরা। যা দেবে আপনাকে প্রোট্রেট ভার্সনের ছবি উঠানোর সুবিধা।

মেমরিকার্ড স্লট এবং সিমকার্ড স্লট

আমরা যারা মাল্টিমিডিয়া লাভার তাদের জন্য থাকছে এক্সট্রা মেমরি কার্ড স্লট এই ফোনটিতে। যদিও এই রেঞ্জের ডুয়াল সিম ফোনগুলোতে এক্সট্রা মেমরি কার্ড স্লট খুবই রিয়ার। কিন্তু হুয়াওয়েই ওয়াই ৯ দিচ্ছে আপনাকে এই সুবিধাটিও। মেমরি কার্ড ২৫৬জিবি পর্যন্ত ব্যবহার করা যাবে ফোনটিতে। আর সাথে ডুয়াল সিম সুবিধাও পাবেন। অর্থাৎ একসাথে দুইটি সিম এবং মেমরিকার্ড ব্যবহার করতে পারবেন অনায়াসে।

 RAM , ROM এবং প্রসেসর

আমরা সবাই জানি স্মার্টফোন থেকে বেস্ট স্পীডি পারফরম্যান্সের জন্য এগুলো কতটা জরুরি। জি হ্যাঁ, এখানে হুয়াওয়েই হতাশ করে নি আমাদের। ব্যবহার করা হয়েছে অক্টাকোর প্রসেসর। যা প্রসেসরের লেটেস্ট ভার্সন। আপনি যদি বেশি RAM এর স্মার্টফোন চান। তবে নিতে পারে এই ফোনটি। কারণ আইফোনটিতে থাকছে ৩ জিবি RAM। ইন্টারনাল স্টোরেজের জন্য থাকছে ৩২ জিবি ROM সুবিধাও।

চিপসেট হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে HiSilicon Kirin 659 চিপসেটটি। যা অনেকটাই লেটেস্ট বলা চলে।

ব্যাটারী এবং অন্যান্য ফিচার্স

হুয়াওয়েই ওয়াই ৯ ফোনটি ব্যাটারী পারফরম্যান্সের দিক দিয়ে সেরা একটি ডিভাইস। যারা লং ব্যাটারী লাইফ এক্সপেক্ট করেন। তাদের জন্য এটি দিচ্ছে ৪০০০ Mah  এর দুর্দান্ত একটি ব্যাটারী। প্রিমিয়াম লুকের কথা চিন্তা করে ব্যাটারিটি নন-রিমোভেবল রাখা হয়েছে। অন্যান্য ফিচার্স নিয়ে ভাবছেন? চিন্তার কোনো কারন নেই। এই ফোনটিতে ফ্রিঙ্গারপ্রিন্ট ফেস আনলোকের মতো দারুন ফিচার্স তো থাকছেই।

আর পাশাপাশি ব্লুটুথ,জিপিএস,মাল্টিটাচিং, এবং মাল্টিমিডিয়াসহ অন্যান্য ফিচার্স তো পাচ্ছেনই।সাথে পাচ্ছেন রেডিও, লাউডস্পীকারেরও সুবিধা।

তো ফোন লাভার্স ! আর দেরি কেন? এখনই ফোনটি কিনে নিয়ে মিডরেঞ্জের ফোনটির সাথে আপডেট করে নাও নিজের পার্সোনালিটিকেও। যারা লং ব্যাটারী লাইফ চাও তাদের অবশ্যই ফোনটি টেস্ট করে দেখার জন্য বলবো। আসা করি কেওই নিরাশ হবে না। আর ফোটোগ্রাফি লাভারদের জন্যও এর ৪ টি ক্যামেরার সুবিধা আকর্ষণীয় বলে আমি মনে করি। এই মিডরেঞ্জের ফোনটিতে অনেক কিছুই পাবেন। পাবেন ফেস আনলক,ফ্রিঙ্গারপ্রিন্ট সুবিধাও। RAM , ROM আর প্রসেসরের দিক দিয়েও এটি অনন্য একটি ফোন বলাই যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here