Iphone 7

আমার বন্ধু জয় অনেকদিন হলো একটি স্মার্টফোন কিনবে ভাবছে। জয় একটু কঞ্জুস টাইপের হলেও। টেকনোলজিয়ের ব্যাপার আমাদের বন্ধুমহলে সবার থেকে এগিয়ে সে। তো রীতিমতো প্রতিবারের মতোই নতুন একটি স্মার্টফোন কেনার জন্য আমার পরার্মশ চাইলো। আমিও ওর টেকনোজি ব্যাকগ্রাউন্ড দেখে Iphone 7  টা সাজেস্ট করলাম। জয় জানতে চাইলো এই ফোনটির গুড এন্ড ব্যাড সাইডগুলো সম্পর্কে।

আচ্ছা আপনি কি জানেন আইফোন ৭ এর ভালো,মন্দের দিকগুলো? হ্যাঁ,জয় এর মতো আমরা অনেকেই জানি না আইফোন ৭ সম্পর্কে। জয়ের সাথে যে যে বিষয়গুলো আলোচনা করেছিলাম। সেইবিষয়গুলো আপনাদের সাথে শেয়ার করতেই আমার এখানে আসা। তবে চলুন আলোচনা করি আইফোন ৭ এর ভালো ও মন্দ দিকগুলো নিয়ে।

বিশেষ যে ফিচার থাকছে এই Iphone 7  ফোনটিতে

আপনি যদি Iphone 7 কিনতে চান। তবে আপনি এতে ৬এসের থেকে খুব বেশি পরিবর্তন পাবেন না। আইফোন প্রযুক্তিতে একটি বিস্ময়কর ফিচারের অ্যাড হয়েছে এই ফোনের মাধ্যমে। ১ মিটার পানির নিচে রাখলেও এই ফোনটির কিচ্ছুটি হবে।৬ এসের সাথে ৮০% মিল পাওয়া যায় এই ফোনটিতে। রিয়ার প্যানেল থেকে এন্টিনা সরিয়ে একটা নতুন লুক এসেছে ফোনটিতে।

রং এবং হেডফোন জ্যাক সিস্টেমের পরিবর্তন

আগেই অবশ্য বলেছি আইফোন ৬ এসের সাথে এর ৮০% মিল থাকার বিষয়টি। কিন্তু আপনি স্লিম এই ফোনটি আরো ২ টি বেশি কালারের পাবেন বাজারে। কালার ২ টি হলো ব্ল্যাক এবং জেট ব্ল্যাক। স্টাইল সচেতন স্মার্টফোন ব্যাবহারকারীদের কালার ২টি পছন্দ হবে আশা করাই যায়। হেডফোনের দিকদিয়ে কিছুটা ইউনিক করা হয়েছে এই ফোনটিতে। সাথে সাথে সরিয়ে ফেলা হয়েছে হেডফোন জ্যাকটিও।

ক্যামেরা এবং অন্যান্য বিষয়গুলো

আপনি কি একটি ভালো ক্যামেরার স্মার্টফোন খুঁজছেন? তবে সেক্ষেত্রে আইফোন ৭ হতে পারে আপনার কাঙ্খিত ডিভাইসটি। টাইমস মেগাজিনেও এর ক্যামেরা পারফরম্যান্সের ভূয়সী প্রশংসা করছে।এতে পাচ্ছেন ৭ মেগাপিক্সসেলের ফ্রন্ট এন্ড ১২ মেগাপিক্সসেলের রিয়ার ক্যামেরা। আমি বলবো মোবাইল বাজারে গিয়ে যাচাই করে দেখুন ফোনটি। আশা করছি লো লাইট ক্যামেরা,কালোর ক্যাপচার এবং জুমিংয়ে ভালো সুবিধা পাবেন এটি থেকে।

হার্ডওয়্যার নিয়ে কিছু কথা

শক্তপোক্ত হার্ডওয়ারের ফোন কে না চায়? আইফোন ৭ থাকবে সে ক্ষেত্রে এ তালিকার শীর্ষে। হ্যাঁ, কারণ এতে ব্যবহার করা হয়েছে এ১০ ফিউসন প্রসেসর। যা এই সিরিজের সর্বশেষ লেটেস্ট একটি। ৪০%  দ্রুত কাজ করতে সক্ষম এটি এ৯ এর তুলনায়। এতে অ্যাড করা হয়েছে শক্তিশালী ব্যাটারীও। ফুলচার্জে ২ ঘন্টার বেশি সচল রাখবে আপনার ফোনটিকে আইফোন ৬এসের তুলনায়।

যদিও হেডফোন জ্যাক সরিয়ে নেয়া হয়েছে। তার বদলে দেয়া হয়েছে স্টেরিও স্পিকার। যা অন্যন্য করেছে ফোনটিকে। স্টোরেজ লিমিট শুরু হবে ৩২ জিবি থেকে। যদিও ফুলচার্জ হতে বেগ পেতে হবে ফোনটির।

যারা কিনতে পারেন ফোনটি

পুরোনো মডেলের ফোন ব্যবহার করে বিরক্ত? চাচ্ছেন নতুন কিছু ট্রাই করতে? তাদের জন্য পারফেক্ট চয়েস হতে পারে এই ফোনটি। বিশেষকরে যারা পুরাতন মডেলের আইফোন গুলো ব্যবহার করছেন। বেশি ব্যাটারী ব্যাকআপ যারা চাচ্ছেন তাদের জন্য সাজেস্ট করবো এইটি। যারা ফোনে বেশি সময় কাটাতে পছন্দ করেন তাদের জন্যও বেস্ট হবে ফোনটি। সবশেষে যারা মোবাইল ফোটোগ্রাফি লাইক করেন। তাদের জন্য একদম পারফেক্ট হবে আইফোন ৭ ফোনটি।

তো বন্ধুরা আমরা জানলাম Iphone 7 সম্পর্কে ভালো মন্দ বিভিন্ন দিকগুলো। আশা করছি বেশ ভালোভাবেই পড়েছেন আমার পুরো লেখাটি। আশা করছি যে প্রত্যাশা দিয়ে লেখাটি শুরু করেছিলাম সেইটা ফুলফিল করতে পেরেছি। আপনারা যারা আইফোন ৭ কিনেছেন বা কেনার কথা ভাবছেন তাদের জন্যে আমার এই ক্ষুদ্র প্রচেষ্টা। তো ভালো থাকবেন সবাই।সবার সুস্বাস্থ্য কামনা করে আজ শেষ করছি তবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here